৩৭ লাখ টাকা নিয়ে লাপাত্তা মাঠ পরিদর্শক আরিফুজ্জামান

0
972

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোরের শার্শা উপজেলা ‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক’ এর অনিয়ম দূর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারনে ৩৭ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়েছে মাঠ
পরিদর্শক আরিফুজ্জামান।

মাঠ পরিদর্শক আরিফুজ্জামান শার্শা ‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের’ ১৭টি সমিতির তদারকির দায়িত্বে ছিলেন। সমিতির সদস্যদের ঋণ দেওয়া, ঋণের কিস্তি নিয়মিত আদায় করা ছিল তার মূল দায়িত্ব। অল্প দিনের মধ্যে সমিতির সাধারণ সদস্যদের সাথে ঘনিষ্ট মেলামেশা, মিষ্টি ব্যবহার ও কথার মারপ্যাচে বিশ^স্ততা তৈরি করে ফেলেন মাঠ পরিদর্শক আরিফুজ্জামান ।

এর ফলে ১৭টি সমিতির প্রায় ৮০ ভাগ গ্রাহকের ঋণ গ্রহনের পাশ বই আরিফুজ্জামান কৌশলে তার কাছে রেখে দেন।

গ্রাহকরা বইয়ের কথা বললে, বলতেন কোন সমস্যা নেই। বই আমার কাছে আছে। এ ভাবে তিনি বিভিন্ন গ্রাহকের কাছ থেকে আদায়কৃত ৩৭ লাখ টাকা বইতে জমা না করে আত্মসাৎ করে লাপাত্তা হয়ে যান।

এদিকে গ্রাহকদের পাশ বই এর হদিস না পাওয়ায় কিস্তির কার কত টাকা বাকী বা জমা আছে তার কোন হিসাব দেখাতে পারছেন না গ্রাহকরা। ‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক’ কর্তৃপক্ষ গ্রাহকদের চাপ দিচ্ছে কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে। বাধ্য হয়ে গ্রাহকদের গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত কিস্তির টাকা।

শার্শার নারায়নপুর গ্রামের সমিতির সদস্য সাইদুল ইসলাম বলেন, আমি যে ২০ হাজার টাকা কিস্তি জমা দিয়েছি। কিন্তু সে টাকা অফিসে জমা না দিয়ে আরিফুজ্জামান আত্মসাৎ করেছে। এ রকম কয়েকশ‘ গ্রাহক আরিফুজ্জামানের কাছে টাকা জমা দিয়ে পথে পথে ঘুরছে। আগের শাখা ম্যানেজার আশরাফুল আলম এ ঘটনার সাথে জড়িতথাকতে পারে বলে অনেক গ্রাহকরা অভিযোগ করেছেন।

তবে আশরাফুল আলম এ ঘটনার দায় নিতে রাজি নয়। তিনি বলেন, কোন গ্রাহক আমার দায়িত্ব পালনের সময় এ বিষয়ে কোন অভিযোগ করেনি।

অভিযোগ করলে বিষয়টি তাৎক্ষনিক ধরা পড়তো। শার্শা ‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের’ বর্তমান শাখা ব্যবস্থাপক সালমা খাতুন জানান, তৎকালিন সময় শাখা ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন আশরাফুল আলম। তিনি এ ঘটনার পর অন্যত্র বদলী হয়ে গেছেন। বিষয়টি জানার পর আরিফুজ্জামানকে কর্তৃপক্ষ হেড অফিসে বদলী করেন। কিন্তু তিনি সেখানে যোগদান না করে গা ঢাকা দিয়েছেন।

পরে ব্যাংকের পক্ষ থেকে এ ঘটনায় ফৌজদারী কার্যবিধি আইনে আদালতে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। যার সিআর নং- ২০/২৩। মামলাটি যশোর সিআইডি অফিসে তদন্তাধীন রয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নারায়ন চন্দ্র পাল বলেন, শার্শা ‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের’ এ ধরনের একটি ঘটনা আমি শুনেছি। টাকা আত্মসাতকারীর বিরুদ্ধে মামলাও হয়েছে জেনেছি।

‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের’ জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাকির হোসেন জানান, ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ ঘটনায় আদালতে মামলা করেছেন। যা সিআইডি তদন্ত করছেন। তদন্তের স্বার্থে এখন কোন তথ্য প্রকাশ করা সম্ভব নয়।

এফএস

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here