Saturday, February 24, 2024
Homeস্পটলাইটভূমি অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে কাফনের কাপড় পরে কৃষকের অনশন

ভূমি অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে কাফনের কাপড় পরে কৃষকের অনশন

কক্সবাজার প্রতিনিধি: ‘আমার অংশের জমি নিয়ে বোনদের আপত্তি ছিল। শুনানি শেষে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম সেই আপত্তি খারিজ করে দেন। খারিজ আদেশের সার্টিফায়েড কপি নেওয়ার জন্য তপন কান্তি পালের কাছে গেলে তিনি দুই লাখ টাকা না দিলে খতিয়ান কর্তন করে বোনদের নামে খতিয়ান করে দেওয়ার হুমকি দেন। ইতিমধ্যে আমি এক লাখ টাকা দিয়েছি। বাকি টাকার জন্য আপত্তি খারিজের সার্টিফায়েড কপির ফাইল আটকে রাখা হয়েছে। কোনো উপায় না দেখে কাফনের কাপড় পরে অনশনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ কথাগুলো এভাবে বলেছেন কৃষক মুবিনুল হক (৫৫)।

জানা গেছে, কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের প্রধান সহকারী তপন কান্তি পালের শাস্তি চেয়ে কাফনের কাপড় পরে শহীদ মিনারে অনশনে বসেছেন তিনি। ঘুষ দাবির অভিযোগে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল চারটা থেকে পেকুয়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান করছেন কৃষক মুবিন।

অভিযুক্ত ভূমি অফিস সহকারী তপন কান্তি পালের শাস্তি, তার দেওয়া ১ লাখ টাকা ও যাবতীয় কাগজপত্র ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত তিনি অনশন চালিয়ে যাবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

মুবিনুল পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূর্ব বাইম্যাখালী গ্রামের বাসিন্দা।

শুক্রবার (১২ মে) সকাল সাড়ে আটটায় গিয়ে দেখা যায়, শহীদ মিনারের পাদদেশে বসে অনশন করছেন মুবিনুল। তার সঙ্গে কেউ নেই। একটি ব্যানার টাঙিয়ে ও কাফনের কাপড় পরে একাই বসে আছেন তিনি।

অভিযোগ আছে, পেকুয়া উপজেলা ভূমি কার্যালয়ে সেবা নিতে গিয়ে প্রধান সহকারী তপন কান্তি পালের কাছে হয়রানির শিকার হয়েছেন এমন ব্যক্তির সংখ্যা কম নয়।

তার মতো ঘুষখোর কর্মকর্তা জেলায় কম আছে। এদের কারণে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে, এমটাই দাবী করে ভুক্তভোগীরা বলছেন, ওই ভূমি কর্মকর্তা ঘুষ ছাড়া কোন কাজই বুঝেন না। তার অফিসে গেলে দেখতে পাই খারিজ বা নামজারি করতে ১ হাজার একশ’ ৭০ টাকা লাগে, অতিরিক্ত কোন টাকা লাগে না। কিন্তু এই কর্মকর্তার কাছে ভূমির খারিজ নিতে দিতে হয় ১০ হাজার থেকে শুরু করে ২ লাখ টাকা।

ঘুষ দাবি ও অনশনের বিষয়ে গতকাল বিকেল থেকে রাত আটটা পর্যন্ত তপন কান্তি পালের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি।

এ বিষয়ে পেকুয়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘তপনের বিষয়ে মুবিনুল হক লিখিত কোনো অভিযোগ আমাকে দেননি। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পেকুয়ার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মুবিনুল অনশন করছেন, এমন একটি ভিডিও আমি দেখেছি।

এফএস

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments