Sunday, May 19, 2024
Homeধর্মঘূর্ণিঝড়ে মহানবী (সা.) যেসব দোয়া বেশি পড়তেন

ঘূর্ণিঝড়ে মহানবী (সা.) যেসব দোয়া বেশি পড়তেন

মহান আল্লাহ আমাদের সৃষ্টি করেছেন। তিনি বিভিন্ন সময় নানা প্রতিকূল পরিস্থিতি দিয়ে আমাদের পরীক্ষা করে থাকেন এবং দেখেন আমরা তাঁর কতটুকু অনুগত। আমাদের দেশের ওপর দিয়ে চলমান ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংও আমাদের জন্য একটি বড় পরীক্ষা।

আর এই পরীক্ষায় আমাদের জীবনে নানারকম দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। আর দুর্ঘটনা ও বিপদের সময় প্রয়োজনীয় সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি আমাদের আল্লাহর দিকে মনোনিবেশ করতে হবে। কোনো বিপদ দেখেই হতাশ হওয়া যাবে না। আশা রাখতে হবে- মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবরকমের বিপদ-আপদ থেকে রক্ষা করবেন।

ঘূর্ণিঝড় ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগে আল্লাহর রাসূল সা: বিশেষ কিছু দোয়া পড়তেন। এ জন্য ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের আগমনে আমাদেরও ওই দোয়াগুলোর প্রতি যত্মবান হওয়া উচিৎ।

জোরে বাতাশ প্রবাহিত হলে এই দোয়া পড়া-

‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা খাইরাহা, ওয়া আউযুবিকা মিন শাররিহা’

অর্থ: হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে এর কল্যাণটাই কামনা করি। এবং আপনার কাছে এর অনিষ্ট থেকে আশ্রয় চাই। (আবু দাউদ ৪/৩২৬, হাদিস : ৫০৯৯)

গর্জনের সময় এই দোয়া পড়া-

‘সুবহানাল্লাজি ইউসাব্বিহুর রা`দু বিহামদিহি ওয়াল মালাইকাতু মিন খিফাতিহি’

অর্থ: পাক-পবিত্র সেই মহান সত্তা- তাঁর প্রশংসা পাঠ করে বজ্র এবং সব ফেরেশতা।

হজরত আব্দুল্লাহ ইবন যুবাইর রা: যখন মেঘের গর্জন শুনতেন, তখন কথা বলা বন্ধ করে দিতেন এবং পবিত্র কুরআনের ওপরের এই আয়াতটি তেলাওয়াত করতেন।

ঝড়-বাতাসের অনিষ্ট থেকে সুরক্ষা পেতে এই দোয়া পড়া-

‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা মিন খাইরি হাজিহির রিহি ওয়া খাইরা মা ফিহা ওয়া খাইরা মা উরসিলাত বিহি, ওয়া আউযুবিকা মিন শাররিহা, ওয়া শাররি মা ফিহা ওয়া শাররি মা উরসিলাত বিহি’

অর্থ: হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে প্রার্থনা করি এর কল্যাণ, এর মধ্যকার কল্যাণ এবং যা এর সাথে প্রেরিত হয়েছে তার কল্যাণ। আর আমি আপনার আশ্রয় চাই এর অনিষ্ট থেকে, এর ভেতরে নিহিত অনিষ্ট থেকে এবং যা এর সঙ্গে প্রেরিত হয়েছে তার অনিষ্ট থেকে। (বুখারি, ৪/৭৬, হাদিস : ৩২০৬ ও ৪৮২৯)

ঝড়-তুফানের সময় কি আজান দেয়া যাবে?
আমাদের দেশে প্রচলিত ঝড়ের সময় আজান দেয়ার বিষয়টি প্রমাণিত নয়, যদিও যথাস্থানে আজান দেয়া ইসলামের অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি নিদর্শন। হাদিসের উদ্ধৃতি দিয়ে যে কথাটির প্রচলন তার কোনো ভিত্তি নেই; বরং এরূপ সময়ে নামাজে দাঁড়িয়ে, সেজদায় আল্লাহর কাছে দোয়া করাই মুমিনের কাজ। (দারুল উলুম দেওবন্দের ফতোয়া, নম্বর : ১৬২৭৬৪)

এফএস

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments